পরিবার

সন্তানের সঠিক বিকাশে ১০টি গুরুত্বপূর্ণ শিশুপালন টিপস

শিশুপালন টিপস

শিশুপালন এর কোন সঠিক সংজ্ঞা বা পন্থা নেই, তবে কিছু শিশুপালন টিপস আপনার সন্তানের দৈনন্দিন জীবনকে সহজ-সরল ও সুন্দর করতে, আপনার সহায়ক হবে। আসুন জেনে নেই ১০ টি গুরুত্বপূর্ণ শিশুপালন টিপস।

শিশুপালনে অনেক বিষয় বিবেচনা করতে হয়। সকল শিশুদের জন্য কোন একটি আদর্শ নিয়ম বলে কিছু নেই। আলাদা-আলাদা শিশুর জন্য আলাদা মনোযোগের প্রয়োজন হয়, আলাদা রকমের কঠোরতা ও ভালবাসার অভিব্যক্তি প্রয়োজন হয়। যেমন ধরুন আমার বাগানে একটি নারকেল গাছ রয়েছে, যদি জিজ্ঞেস করেন কতটুকু পানি তাতে দিতে হয়, আমি বললাম প্রতি গাছে ৫০ লিটার পানি দিতে হবে। কিন্তু আপনি আপনার বাড়ীর ফুল গাছে ৫০ লিটার পানি দিলেন তাতে তো গাছটি মারা যাবে। আপনাকে গাছ বুঝে তাতে পরিমাণ মত পানি দিতে হবে।

শিশুপালন টিপস ১ ::  তাদের প্রতি নিজের অধিকারকে সীমিত করুন

আনন্দের ঝুড়ি নিয়ে একটি সন্তান আপনার মাধ্যমে আপনার ঘরে এসেছে –এটা ভাগ্যের ব্যাপার। সন্তানকে আপনার সম্পত্তি মনে করবেন না, তারা আপনার অধিভুক্ত নয়। আনন্দের সাথে সন্তানকে লালন করুন, সুন্দরভাবে বেড়ে উঠতে সহযোগিতা করুন। সন্তানকে আপনার ভবিষতের পুঁজি মনে করবেন না।

শিশুপালন টিপস ২ :: তাদের নিজের মত করে বাড়তে দিন

তাদের যা হতে হবে, তাদেরকে নিজের মত করে বাড়তে দিন। আপনার জীবনের শিক্ষা থেকে তাদের নিজের ছাঁচে ফেলবেন না। আপনি জীবনে যা করেছেন আপনার সন্তাকেও তা ই করতে হবে তা নয়। আপনার সন্তানকে সেটাই করা উচিত যা আপনি জীবনেও করার কথা ভাবেননি। এতেই তারা এগোবে।

শিশু পালন টিপস :: তাকে নিজের মত খেলতে দিন

তাকে নিজের মত খেলতে দিন

 

শিশুপালন টিপস ৩ :: তাদের সত্যিকারের ভালবাসা দিন

অনেকেই ভুল বোঝে যে সন্তান যা খেতে চাইছে তাকে তা দিলেই বুঝি তাকে ভালোবাসা হল। তারা যা চাইছে তা ই দিয়ে দিচ্ছি,এটা বোকামী ছাড়া কিছু নয় কি? তাকে অভাবটা বুঝতে দিন, তাতে সাময়িকভাবে সে আপনার উপর মনোক্ষুন্ন হবে; কিন্তু কিছুক্ষণ ঠিকই আপনার কাছে ফিরে আসবে। যাকে সত্যিকারের ভালবাসেন,তার ভালটাই আপনি চিন্তা করবেন, তাতে যদি আপনার কিছু ক্ষতি হয়েও যায়।

শিশুপালন টিপস ৪ :: তাদের বড় হতে তাড়া দেবেন না

শিশুকে শিশুই থাকতে দিন; তার প্রাপ্তবয়স্কহওয়ার কোন তাড়া নেই, কারণ সেখান থেকে ফেরত আসার উপায় নেই। এটা খুবই সুন্দর যখন সে শিশু থাকে বা শিশুর মত আচরণ করে। যখন সে বড় হয়ে যায়, কিন্তু শিশুর মত আচরণ করে সেটাই খারাপ।

শিশুপালন টিপস ৫ :: শেখার সময় করুন, শিখানোর নয়

জীবন সম্পর্কে আপনি কতটুকু জানেন, সন্তানকে শেখানোর জন্য? কয়েকটি জীবন রক্ষাকারী টিপসই না হয় আপনি শেখাতে পারবেন। নিজের সাথে সন্তানের সাথে তুলনা করে দেখুনতো কে বেশি আনন্দ করতে পারছে? আপনার সন্তান, তাই না? যদি সে আপনার চেয়ে বেশি আনন্দ করতে জানে, ভাবুনতো জীবন সম্পর্কে কে বেশি পরামর্শ দিতে পারবে, আপনি নাকি সে?

যখন সন্তান আসে,তখন শেখার সময়,শিখানোর নয়। যখন কোন সন্তান আসে, অজান্তেই আপনি হাসেন, খেলেন, গান করেন, এমন সব কিছু করেন যা আপনি করতে ভুলে গেছেন। তাই এটা শেখার সময়।

শিশুপালন টিপস ৬ :: তাদের প্রকৃতিক আধ্যাত্মিকতায় পালন করুন

শিশু পালন টিপস :: শিশুকে নিয়ে একান্তে সময় দিন। শুধু আপনি আর আপনার সন্তান

শিশুকে নিয়ে একান্তে সময় দিন। শুধু আপনি আর আপনার সন্তান

যদি কোন হস্তক্ষেপ করা না হয় তাহলে শিশুরা আধ্যাত্মিক সম্ভাবনার খুব কাছে থাকে। সাধারণত পিতা-মাতা, শিক্ষক, সমাজ, টেলিভিশন এদের দ্বারা খুব বেশি হস্তক্ষেপ হয়। এমন একটা পরিবেশ তৈরি করুন যেখানে এই হস্তক্ষেপের মাত্রা কমিয়ে আনা যাবে এবং আপনার বা সমাজের কড়াকড়িতে বড় না করে সন্তানকে নিজের বিচার বুদ্ধিতে বেড়ে উঠতে উৎসাহিত হবে। শিশুটি প্রকৃতিকভাবে আধ্যাত্মিক হয়ে উঠবে যদিও সে জানে না আধ্যাত্মিকতা কি জিনিষ।

শিশুপালন টিপস ৭ :: একটি সহযোগীতাপূর্ণ এবং স্নেহের পরিবেশ দিন

যদি আপনি ভয় ও উদ্বেগের উদাহরণ তৈরি করেন, তাহলে আপনার সন্তান কিভাবে হাশিখুশিভাবে বেড়ে উঠবে আশা করেন? তারাও এগুলোই শিখবে। সবচেয়ে ভাল হয় যদি আপনি একটি আনন্দময় এবং স্নেহময় পরিবেশ তৈরি করতে পারেন।

শিশুপালন টিপস ৮ :: তাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করুন

সন্তানের উপর আপনার নিজেকে চাপিয়ে দেওয়া বন্ধ করুন এবং তাদের সাথে মনিবের মত আচরণ না করে, বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলুন। নিজেকে উঁচুতে তুলে সন্তানকে বলবেন না তাকে কি করতে হবে। নিজেকে তাদের চেয়েও নিচে নামিয়ে আনুন যেন তাদের জন্য সহজ হয় আপনার সাথে কথা বলতে।

শিশুপালন টিপস ৯ :: সম্মান চাওয়া থেকে বিরত থাকুন

সন্তানদের কাছে আপনি কি চাইছেন; ভালবাসা, তাই তো? কিন্তু অনেক বাবা-মা বলেন, “আমি বড় আমাকে অবশ্যই সম্মান করবে”। আপনি পৃথিবীতে কয়েক বছর আগে এসেছেন, আকারে বড় এবং আপনি কিছু বেঁচে থাকার উপায় জানেন,একারণে নিজেকে সন্তানের চাইতে উৎকৃষ্ট মনে না করে সম্মান প্রত্যাশা না করে; সম্মানের জায়গাটা তৈরি করুন।

শিশুপালন টিপস ১০ :: নিজেকে সত্যিকারের আকর্ষণীয় করে তুলুন

শিশুরা অনেক কিছুতে প্রভাবিত হয়। টিভি, প্রতিবেশী, শিক্ষক, স্কুল আরও হাজারো জিনিষে প্রভাবিত হয়। সে সেই রাস্তাতেই যাবে যা তার কাছে আকর্ষণীয় মনে হবে। অভিবাবক হিসেবে নিজেকে এমনভাবে তৈরি করতে হবে যেন বাবা-মায়ের সাথে থাকাটাই তার কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় মনে হয়। আপনি যদি বুদ্ধিমান, উৎফুল্ল, চমৎকার মানুষ হয়ে থাকে, সে অন্য কিছু খুঁজতে যাবে না। যেকোন কিছুতেই, সে আপনার কাছে আসবে এবং জিজ্ঞেস করবে।

তার কৌতুহলে নিবারণ করুন, আশে পাশে ঘটে যাওয়া ঘটনা শিশুসুলভ করে সাজিয়ে বলুন, যেমন বাংলাদেশে সোফিয়া রোবট সম্পর্কে তাকে বলুন।  আর তার মতামত জানার চেষ্টা করুন, তাকে সোফিয়ার ছবি দেখিয়ে তার ফিডব্যাক জানার চেষ্টা করুন। তাকে আপনার মতামত চাপিয়ে দেবেন না। সোফিয়া সম্পর্কে জানতে আমাদের এই আর্টিকেল পড়ুন এখানে।

আপনি যদি সত্যি সত্যিই চান আপনার সন্তানকে ভালভাবে লালন পালন করবেন; নিজেকে আগে একজন শান্ত, স্নেহময় মানুষ হিসেবে পরিণত করতে হবে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top