ধর্ম

বার্মিংহামে ১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ এর সন্ধান

১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ
১,৩৭০ বছর পূর্বের আবু বকর (রাঃ) এর কোরআন শরিফ

১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ এর একটি কপির সন্ধান পাওয়া গেছে বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ে, ধারণা করা হচ্ছ এটি সম্ভবত হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর প্রিয় বন্ধু, সহচর এবং সাহাবা হযরত আবু বকর (রাঃ) এর, যাকে পৃথিবীর সর্বপ্রথম মুসলিম বলা হয়ে থাকে।

২০১৫ সালের জুলাই মাসে ওই কপিটির কিছু খণ্ডের উপর রেডিওকার্বন ডেটিং পরীক্ষা চালানো হয়। রেডিওকার্বন ডেটিং হচ্ছে, কোন জিনিসের বয়স বের করার একটি বৈজ্ঞানিক ও প্রায় নির্ভুল পদ্ধতি। তো সেই পরীক্ষার  ফলাফলে জানা যায়, কপিটির বয়স কমপক্ষে ১,৩৭০ বছর। এতে করে এই সম্ভাবনা প্রতিষ্ঠিত হতে পারে যে এটিই ইসলামের পবিত্র গ্রন্থের সবচে’ সুপ্রাচীন কপি।

১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম ফাউন্ডেশন ফর ইসলামিক স্টাডিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জামাল বিন হুয়ারিব বলেছেন যে, ওই সময়ে খুব কমসংখ্যক লোকের দ্বারাই এই কাজটি করার সম্ভাবনা আছে – আর তিনি হযরত আবু বকর সিদ্দীক (রাঃ) হওয়ার সম্ভাবনাই সবচেয়ে বেশি।

হযরত আবু বকর সিদ্দীক (রাঃ) হলেন, নবীজি (সাঃ) এর পরিবারের বাইরে প্রথম ব্যক্তি যিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেছিলেন। তিনি হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর একজন বন্ধু ও বিশ্বস্ত উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে তিনি প্রথম মুসলিম খলিফা হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন এবং ৬৩৪ খ্রিস্টাব্দে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত , ২৭ মাস শাসনভার পরিচালনা করেন।

বার্মিংহামে পাওয়া কোরআন এর কপিটির বয়স নিশ্চিত মেনে নিলে, এটি হবে ইসলামের একেবারে প্রথম দিকে তৈরী করা একটি কপি, যখন তাবৎ বিশ্বের মুসলিম জনসংখ্যা ছিলো মাত্র কয়েক শত।

“আমি বিশ্বাস করি এইটি আবু বকর (রাঃ) এর কোরআন,”  জনাব বিন হুয়ারিব ঠিক এভাবেই বিবিসি নিউজকে বলেছেন। “এটি মুসলিম বিশ্বের জন্য এযাবৎকালের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার,”

তিনি আরও বলেন, “বার্মিংহাম এ পাওয়া কপির চামড়ার তৈরী করা কাগজ এবং হাতের লেখার মান নির্দেশ করছে যে, ২০০ পাতার এই কপিটি শুধুমাত্র একজন অবিশ্বাস্যরকমের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির জন্য তৈরী করা হয়েছিল”।

“এই সংস্করণটি, এই সংগ্রহটি, এই পাণ্ডুলিপিটি ইসলামের শিকড়, এটি কোরআন শরীফের শিকড়… এটি ইসলাম অধ্যয়নে এক বিপ্লব তৈরী করবে,”

জনাব বিন হুয়ারিব এভাবেই বলে যাচ্ছিলেন।

১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ

যদিও সকলেই এমনটি ভাবছেন না যে, বার্মিংহামে পাওয়া কোরআন এর কপিটি হযরত আবু বকর (রাঃ) এর ব্যক্তিগত কপি ছিল।

বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটির খ্রিস্টধর্ম ও ইসলামের অধ্যাপক ডেভিড টমাস, বিন হুয়ারিব এর দাবিকে প্রকৃতপক্ষে একটি খুব বড় উত্তরণ বলে উল্লেখ করেছেন। তার মতে, রেডিওকার্বন ডেটিং নিশ্চিত করছে যে এই পাণ্ডুলিপিটি প্রথম খলিফার মৃত্যুর প্রায় ২০ বছর পর তৈরী করা হয়েছিল।

যদিও তিনি স্বীকার করেন যে “প্রকৃতপক্ষে যিনি লিখেছিলেন সেই ব্যক্তিটি সম্ভবত হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে ব্যক্তিগতভাবে জানতেন”, অধ্যাপক টমাস বিশ্বাস করেন যে কপিটির বয়স নির্ধারণে “গ্রাফিকাল এভিডেন্স” যথা কপিটির হাতের লেখার ধরণের উপর বেশি নির্ভর করা হয়েছে।

এই বছরের শুরুতে বার্মিংহাম শহরের বিশ্ববিদ্যালয়ে খুঁজে পাওয়া ১,৩৭০ বছর আগের কোরআন শরিফ এর কপিটি এক শতাব্দীরও বেশি সময় পূর্বে হারিয়ে গিয়েছিলো।

এই অনুসন্ধানকে ইসলামিক গ্রন্থসমূহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার হিসেবে ব্যাপকভাবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

ইনডেপেনডেন্ট পত্রিকা অবলম্বনে তৈরীকৃত।
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top